বাঙালি পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ গড়তে সরকারি ইংরেজি মাধ্যম বিদ্যালয় এবার বেহালায়

২৩ ফেব্রুয়ারি: দেশ তো বটেই, বিশ্ব দরবারেও বাঙালিকে ফের মাথা তুলে দাঁড়াতে হবে। এজন্য ইংরেজি ভাষায় পটু হওয়া বাঙালি পড়ুয়ার কাছে অত্যন্ত দরকার। সেই কথা মাথায় রেখে, এবার বেহালায় উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত সরকারি ইংরজি মাধ্যম স্কুল চালু করতে চলেছে রাজ্য সরকার। শনিবার এই সৌরীন্দ্র গভর্নমেন্ট ইংলিশ মিডিয়াম এইচ এস স্কুলের (কো এড ইন্টিগ্রেটেড) উদ্বোধন করতে চলেছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বেহালার বেচারাম চট্টোপাধ্যায় স্ট্রিটের এই স্কুলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পার্থবাবু ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন, সাংসদ সুব্রত বক্সী, মেয়র পারিষদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ও।

শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর, রাজ্য সরকার মনে করে বাঙালি বিশ্বের অন্য জাতির তুলনায় মেধায় পিছিয়ে নেই। বরং, এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু, বাঙালির মূল সমস্যা হয়ে উঠেছে, তার প্রকাশ করার ক্ষমতা। ইংরেজ আমলে কলকাতা ভারতের রাজধানী থাকায় সংস্কৃতজ্ঞ বাঙালি নিজেদের মেলে ধরার সুযোগ পেয়েছে। ঘটেছে নবজাগরণ, আলোয় উঠে এসেছেন একের পর এক বাঙালি মনীষী। কিন্তু, রাজধানী দিল্লিতে চলে যাওয়ার পর থেকে, সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত হতে শুরু করে বাঙালি। এর পিছনেও ইংরেজিই কারণ।

সাম্রাজ্যবাদের দৌলতে ইংরেজ তাদের ভাষাকে আন্তর্জাতিক বানিয়েছে। সেই বাস্তবকে স্বীকার না-করে, ‘মাতৃভাষা মাতৃদুগ্ধসম’ ভাবনার ভুল প্রয়োগ করে ইংরেজি থেকে মুখ ঘুরিয়ে থাকা বাঙালির কাছে আত্মহত্যার সামিল। বাংলার প্রতিবাদী মুখ্যমন্ত্রী, বাম আমলের সেই পথে তাই রাজ্যকে ঠেলে দিতে চান না। এমনিতেই বাঙালি আর্থিক দিক থেকে বিভিন্ন জাতির চেয়ে পিছিয়ে। এবার, বাঙালির কাছ থেকে শিক্ষার আধিপত্যও কেড়ে নেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে। সেই কথা মাথায় রেখে, রাজ্য সরকার প্রাথমিক থেকে ইংরেজি চালু করেছে। কষ্ট হলেও বিদেশি ভাষায় বাঙালিকে দক্ষতা অর্জন করতেই হবে। তবেই, স্বকীয়তা বজায় রাখা বাঙালির পক্ষে সম্ভব হবে বলেই বিশ্বাস রাজ্য সরকারের। শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর, সেই কথা মাথায় রেখে, রাজ্য সরকার ইংরেজি মাধ্যম স্কুল চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যাতে কাড়ি কাাড়ি টাকা খরচা করে বাঙালি অভিভাবকদের বেসরকারি ইংরেজিমাধ্যম স্কুলে ছুটে যেতে না-হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *